Effective Tips on Facebook Content Strategy!

Effective Tips on Facebook Content Strategy

বিগত কয়েক বছর ধরে ফেসবুকে বেস্ট পারফর্মিং কন্টেন্ট হিসেবে নিজের স্থান পাঁকাপোক্ত করেছে “ভিডিও” কন্টেন্ট। অন্যান্য কন্টেন্টের তুলনায় ভিডিও কন্টেন্টে এংগেজমেন্ট, রিয়্যাকশন এবং রেস্পন্স তুলনামূলকভাবে অনেক বেশি হয় যা ফেসবুক কনটেন্ট স্ট্র্যাটিজি বিশ্লেষণ করলে পাওয়া যায় ।

এছাড়াও ফেসবুকে ভিডিওর মাধ্যমে একটি মেসেজ খুব দ্রুত ব্যবহারকারীদের মাঝে পৌঁছে দেওয়া যায়। আর বিনোদন তো আছেই।

ফেসবুক কনটেন্ট স্ট্র্যাটিজি টিপস

নতুন মনিটাইজেশন পদ্ধতি ব্যবহার করে কন্টেন্ট ক্রিয়েটররা পপুলার ফেসবুক কনটেন্ট স্ট্র্যাটিজি প্রয়োগ করে ইউটিউবের মতো ফেসবুক থেকেও কন্টেন্টে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আয় করতে পারবে, এমন অসাধারণ সুযোগ করে দিয়েছে ফেসবুক। ইতোমধ্যে অসংখ্য ক্রিয়েটর ফেসবুক কনটেন্ট স্ট্র্যাটিজি তৈরি করে মাসে হাজার হাজার ডলার কামিয়ে নিচ্ছেন ফেসবুক মনিটাইজেশনের মাধ্যমে।

তবে আপনার আইফোন বা শাওমির দারুণ ক্যামেরা দিয়ে করা সাধারণ একটি ভিডিও ক্লিপ ধারণ করে তা আপ্লোড দিয়ে হাজার ডলার কামানোর স্বপ্ন দেখা নিছক স্বপ্নই। কিছু কিছু ক্ষেত্রে অনেক সৌভাগ্যবানের দেখা হয়তো আপনি পেয়ে যাবেন, যারা এরকম নিছক ভিডিও আপ্লোড করেও অনেক টাকা কামাচ্ছে।

কিন্তু এটা একদমই এক্সেপশনাল কেস। ফেসবুক মনিটাইজেশনের মাধ্যমে আয় করতে হলে আপনাকে অবশ্যই কিছু ফেসবুক কনটেন্ট স্ট্র্যাটিজি ফলো করতে হবে এবং বিষয়ভিত্তিক ভিডিও বানাতে হবে।

এই সপ্তাহে ফেসবুক মনিটাইজেশন ব্যবহার করে ফেসবুক থেকে আয়ের কিছু টিপস দিয়েছে। ফেসবুকের এই টিপসগুলো মূলত ভারতের আর্ট এন্ড ক্রাফট নিশের পেজ “Art All the Way”-এর উপর ভিত্তি করে দেওয়া হয়েছে।

ফেসবুক ক্রিয়েটর ব্লগের টিপস ট্যাবে “Art All the Way” কিভাবে তাদের পেজের ভিডিও আপ্লোড করে সাফল্য পেয়েছে তারই একটা ওভারভিউ দিয়েছে এবং কিছু টিপস দিয়েছে যা কন্টেন্ট ক্রিয়েটরদের অবশ্যই মাথায় রেখে কাজ করা উচিত।

“Art All the Way” পেজটির শুরু থেকেই ফোকাস ছিলো ভিডিওর দিকে। তারা নিয়মিত বিরতিতে ফেসবুকে হাই কোয়ালিটির ভিডিও আপ্লোড করেছে। এতে ফ্যানদের সাথে তাদের এংগেজমেন্ট বেড়েছে খুব দ্রুত হারে।

তাদের সাফল্যের মূল চাবিকাঠি ছিলো কন্টেন্ট কোয়ালিটি অর্থাৎ ভিডিওর মান এবং ধারাবাহিকতা। এই পেইজের ভিডিওগুলো বলতে গেলে একদমই বেসিক লেভেলের। কিন্তু তারা তাদের নিজস্ব প্রেজেন্টেশন স্টাইল, কালার এবং নিজস্ব টেমপ্লেট ব্যবহার করে ভিডিওগুলোকে অন্যমাত্রায় নিয়ে গেছে।

এছাড়াও তারা একটা নির্দিষ্ট শিডিউল মেইন্টেইন করে ভিডিও আপ্লোড দিয়েছে। এতে করে তাদের ফ্যানরা মোটামুটি একটা ধারণা পেয়ে গেছে যে, এই পেজ থেকে কখন ভিডিও আপ্লোড হবে। এই ব্যাপারগুলো কন্টেন্ট ক্রিয়েটরদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ফেসবুক কনটেন্ট স্ট্র্যাটিজি : কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

আপনি যদি একজন কন্টেন্ট ক্রিয়েটর হয়ে থাকেন বা হতে চান এবং ফেসবুক মনিটিজেশনের মাধ্যমে টাকা আয় করতে চান তাহলে আগে আপনাকে ঠিক করে নিতে হবে আপনি কোন ধরণের ভিডিও বানাতে চাচ্ছেন।

আপনার ভিডিওগুলোর জন্য একটা নির্দিষ্ট কালার বা থিম অথবা টেমপ্লেট এবং প্রেজেন্টেশন স্টাইল নির্ধারণ করে নিতে হবে। আপনি ব্যাকগ্রাউন্ডে এক কালারের সিম্পল একটি কার্ড রেখেও ভিডিও বানাতে পারেন। আরও উন্নত মানের ভিডিও বানাতে চাইলে ছোটোখাটো একটা স্টুডিও তৈরি করে নিতে পারেন।

ভিডিও মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রে ধারাবাহিকতা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়। ধারাবাহিকতা আপনার পেজের ব্র্যান্ড ভ্যালু ক্রিয়েট করে। তাই কাজ শুরু করার আগে অবশ্যই একটা পরিকল্পনা করা উচিত। কি ভিডিও দিবেন, কতক্ষণ পরপর ভিডিও আপ্লোড করবেন ইত্যাদি।

যাইহোক “Art All the Way” এভাবে কিছুদিন ভিডিও আপ্লোড করার পর তারা ফেসবুক মনিটাইজেশনের জন্য এপ্লাই করলো। মনিটাইজেশন পাওয়ার পর তাদেরকে ভিডিও ডিউরেশন বাড়াতে হলো। কারণ ফেসবুকে ৩ মিনিটের চেয়ে কম ডিউরেশনের ভিডিওতে অ্যাড দেয় না।

নোট (Note) :

[ফেসবুক পেজে মনিটাইজেশন পেতে হলে আপনার পেজে অবশ্যই ১০ হাজার ফলোয়ার থাকতে হবে। এবং সেই সাথে ৩ মিনিট বা এর বড় ডিউরেশনের ভিডিওতে ৩০ হাজার মিনিট ১-মিনিট ভিউ থাকতে হবে।]

ফেসবুক কর্তৃপক্ষের ব্যাখ্যাঃ

“Art All the Way” পেজে ইন-স্ট্রিম অ্যাড যুক্ত হওয়ার পর অর্থাৎ মনিটাইজেশন পাওয়ার পর তারা তাদের কন্টেন্ট স্ট্র্যাটিজিতে পরিবর্ত এনেছিলো। নতুন করে ফ্রেমওয়ার্ক তৈরি করে নতুন ভাবে কাজ করছিলো।

ফেসবুক প্ল্যাটফর্মের এই “Art All the Way” পেজের ভিডিওগুলোকে বিশ্লেষণ করে ফেসবুক তাদের ভিডিওতে কিছু নিজস্বতা পেয়েছে। যেমন-

  • “Art All the Way” এর ভিডিওগুলোকে বিশ্লেষণ করে ফেসবুক তাদের ভিডিওতে কিছু নিজস্বতা পেয়েছে। যেমন- তাদের লগো
  • ভিডিও এর শুরুতেই যে জিনিসটা বানানো হয়েছে তার টাইটেলসহ একটা ছোটো শট
  • ভিডিও বানাতে যে জিনিসগুলো ব্যবহার করা হয়েছে তার তালিকা
  • ধাপে-ধাপে খুব সহজেই কিভাবে জিনিসটা বানানো যায় তা দেখিয়েছে
  • বানানো শেষে সম্পূর্ণ জিনিসটার একটা ফাইনাল শট

এই ব্যাপারটা আবারও বলতে হচ্ছে, ধারাবাহিকতা। ধারাবাহিকতা বজায় রাখার জন্য আগে থেকেই একটা পারর্ফেক্ট প্ল্যান করে রাখতে হবে। কিছু কন্টেন্ট আগে থেকেই ব্যাক-আপ রাখতে হবে।

ধরুন, আপনার কম্পিউটার নষ্ট হয়ে গিয়েছে কিংবা আপনি খুব অসুস্থ অথবা অন্য কোন কারণে আপনি ভিডিও বানাতে পারছেন না তখন কি করবেন ?

ধারাবাহিকতা নষ্ট হয়ে গেলে এংগেজমেন্ট কমে যায়। সাথে ব্র্যান্ড ভ্যালুও নষ্ট হয়। তাই কন্টেন্ট ক্রিয়েটরদের এই বিষয়টি খুব গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করা উচিত।

“Art All the Way” পেজের ভিডিওগুলোতে তেমন উচ্চমানের কোন এডিটিং স্কিল বলতে গেলে একদমই নেই। খুব সাধারণ এই ভিডিওগুলো দিয়েই এই পেজটি ৩.৪ মিলিয়ন ফলোয়ার পেয়ে গেছে। শুধুমাত্র পারর্ফেক্ট স্ট্র্যাটিজি এবং ধারাবাহিকতার কল্যাণে।

আরেকটি ব্যাপার আপনাদের বলা হয়নি এখনও, “Art All the Way” কিন্তু এই ভিডিওগুলো তাদের ইন্সটাগ্রাম একাউন্টেও রি-আপ্লোড করে।

শেষকথা

শুধুমাত্র এই টেকনিক ব্যবহার করলেই যে আপনি সাফল্য পাবেন অন্যথায় পাবেন না এমনটা কিন্তু মোটেও না। ভিডিও কন্টেন্ট বানিয়ে ফেসবুক থেকে আয় করতে চাইলে এগুলো কিছু বেসিক এবং গুরুত্বপূর্ণ টিপস। এই টিপসগুলো ফলো করলে এবং ধারাবাহিকতা বজায় রেখে কাজ করলে আপনি ২০২০ সালে নিশ্চিত সাফল্য পাবেন এটা হলফ করেই বলতে পারি।