Facebook Advertising Steps: How to Advertise on Facebook

Facebook Advertising Steps How to Advertise on Facebook

ফেসবুক! বর্তমান সময়ের অন্যতম একটি নাম। এই নাম শুনেনি তেমন কাউকে খুঁজে পাওয়া যাবে না। আর সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর জন্যও ফেসবুক হল সবচাইতে সেরা প্লাটফর্ম। আর হবেই বা না কেন? বর্তমানে প্রতিদিন প্রায় দেড়শ কোটির উপর ইউজার রয়েছে এই ফেসবুকের।

আর যেহেতু ফেসবুক কোম্পানির আয়ের প্রধান উৎস হল আপনার, আমার, আমাদের দেয়া বিজ্ঞাপনের টাকা। ঠিক একারণেই প্রতিনিয়ত বিজ্ঞাপন দেয়ার নিত্য নতুন ফিচার যোগ করে ফেসবুক বিজ্ঞাপন অনেক বেশি কার্যকর করে ফেলছে।

সাধারণত আমরা ফেসবুক মার্কেটিং বলতে শুধুমাত্র ফেসবুকের যে কোন একটি পোষ্ট বা ভিডিও বুস্ট  করা অথবা পেজের লাইক বৃদ্ধি করাকেই বুঝে থাকি।

কিন্তু আদতে আপনি যদি ফেসবুকের প্রতিটি বিজ্ঞাপনকে ক্যাম্পেইনের আন্ডারে রেখে সম্পুর্ন রিপোর্ট আলাদা ভাবে বুঝতে পারেন এবং সেই অনুযায়ী পরবর্তী ক্যাম্পেইন সাজিয়ে নিতে পারেন তাহলে আপনার সাফল্য আর ঠেকায় কে? আসুন বিষয়টি একটু বুঝিয়ে বলি……

ধরুন আপনি ছেলেদের প্যান্ট শার্ট বিক্রি করবেন আর তার জন্য আকর্ষণীয় উপায়ে একটি ফ্যান পেজ তৈরি করলেন। এরপর আপনি প্রথমেই পেজের লাইক বৃদ্ধির জন্য ১৪ হাজার টাকা দিয়ে একটি ফেসবুক বিজ্ঞাপন দিলেন দুই সপ্তাহের।

এরমধ্যে আপনি লক্ষ্য করলেন কোনদিন আপনার পেজে লাইক বেশি আসছে আবার কোনদিন লাইক অনেক কম আসছে। এটাকে আপনি তেমন গুরুত্বের সাথে না নিয়ে পরবর্তীতে সপ্তাহে কয়েকটি পন্য দিয়ে একটি পোষ্ট এক সপ্তাহের জন্য বুস্ট করলেন সাত হাজার টাকা দিয়ে।

প্রথম সপ্তাহে সাত হাজার টাকা দিয়ে বুস্ট দেয়ার পর আপনার প্রায় দশ হাজার টাকার সেল আসল আর আপনি তো মহাখুশি! পরের সপ্তাহে আবার বুস্ট দিলেন সাত হাজার টাকা দিয়ে… কিন্তু পরের সপ্তাহে মাত্র দুই থেকে তিন হাজার টাকার সেল আসল।

আপনার খুশি ততক্ষণে কিছুটা কমে গিয়েছে এবং হালকা হলেও আপনি এই বিজ্ঞাপনের প্রতি হতাশ হয়ে উঠলেন। আর দেখলেন পরে বুস্ট দেয়ার পর আর আপনার তেমন একটা সেল আসছে না।

অথচ আপনি প্রথম থেকেই যদি এই বিজ্ঞাপনগুলো ফেসবুক এড ম্যানেজার দিয়ে ক্যাম্পেইন আকারে করে রেখে রিপোর্টিং নিয়ে একটু গবেষণা করতেন তাহলে আপনার আজকে এই দিন আসত না।

আপনি হয়ত দেখতেন প্রথম সপ্তাহে লাইক বুস্ট দেয়ার পর আপনার পেজে বেশি এনগেজমেন্ট হচ্ছে শুধুমাত্র শুক্রবার এবং শনিবার। এর কারন কি? এর কারন হতে পারে ছেলেরা শুক্রবার ও শনিবার অফিসে না যেয়ে বাসায় অবসর থাকে।

এক্ষেত্রে আপনি যদি সপ্তাহের পাঁচদিন ফেসবুকে শুধুমাত্র এমন ছেলেদের কাছে বিজ্ঞাপন দিতেন যারা এখন তেমন কোন জব করছে না, তাহলে এনগেজমেন্ট অনেক বেশি পাবেন।

একইভাবে শুক্রবার ও শনিবার যদি বুস্ট দিতেন শুধুমাত্র চাকুরীজীবী ছেলে অডিয়েন্স টার্গেট করে তাহলে প্রথম থেকেই পুরো বিষয়টি আপনি বুঝে ফেলতেন।

একই সাথে আপনার বিজ্ঞাপনের সময় নিয়ে রিপোর্টিং ভালোভাবে লক্ষ্য করলে হয়ত দেখতেন শুধুমাত্র রাত ৯ টা থেকে ১ তা পর্যন্ত এনগেজমেন্ট বেশি আসছে।

তাহলে বাকি সময়গুলোতে বিজ্ঞাপন দিয়ে শুধুই টাকা নষ্ট করে তেমন একটা লাভ কি? এতে করে আপনার অনেক টাকা সেভ হত এবং এভাবেই রিপোর্টিং এর মাধ্যমে আপনি নিজের কাস্টোমারদের সম্পর্কে আরো ভালোভাবে বুঝতে পারতেন এবং সেভাবেই পরবর্তী বিজ্ঞাপনগুলো দেয়ার মাধ্যমে খুব অল্পদিনের মধ্যেই ব্যবসা সফল হয়ে উঠতে পারতেন।

সুতরাং বুঝতেই পারছেন, যে ফেসবুক মার্কেটিং শুধুমাত্র বুস্টিং নয় বরং অডিয়েন্স বুঝে সেই অনুযায়ী ডাটা ড্রিভেন মার্কেটিং করতে পারাটাই সফলতার মূলমন্ত্র।

আর এইসব ফেসবুক মার্কেটিং এর খুঁটিনাটি নিয়েই আমরা এই সিরিজটি তৈরি করেছি, এই পর্বগুলো আপনি যদি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত ভালোভাবে পড়ে সেই অনুযায়ী প্র্যাকটিস করতে পারেন তাহলে খুব অল্পদিনের মধ্যেই আপনি একজন সফল ফেসবুক মার্কেটার হতে পারবেন।

নিজের ব্যাবসার সেই বহুল আকাঙ্ক্ষিত সোনার হরিণটি আপনার হাতের মুঠোয় এসে ধরা তো দিবেই সেই সাথে আপনি অন্যান্য ব্যবসায়ীদের ফেসবুক মার্কেটিং এ সাহায্য করার বিনিময়ে আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে অনলাইনে ঘরে বসে আয়ও করতে পারবেন।

আসুন তাহলে এক নজরে দেখে নেই আমাদের এই সিরিজটি যে পর্বগুলো দিয়ে সাজানো হয়েছে সেগুলোর বিস্তারিত।

যে পাঁচটি কারনে আপনি ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দিবেন

আপনি হয়ত জানেনই না ফেসবুক বিজ্ঞাপনের বিপুল সম্ভাবনা সম্পর্কে। সময় যে এখন আধুনিক হয়ে উঠছে প্রতিনিয়ত, আপনি যদি সেই আধুনিকতার সাথে তাল না মিলাতে পারেন তাহলে এই পর্বটি ঠিক আপনার জন্যই সাজানো হয়েছে।

এখানে আপনি জানতে পারবেন “ঠিক কি কারনে আপনার ফেসবুক মার্কেটিং করা উচিৎ!” প্রতিদিন যে সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মটি দেড়শ কোটির বেশি মানুষ ব্যবহার করে, সেই প্লাটফর্মে বিজ্ঞাপন না দিলে আর কোথায় দিবেন বিজ্ঞাপন?

এই পর্বে আপনি জানতে পারবেন ফেসবুক মার্কেটিং করে কীভাবে আপনি খুব দ্রুত নিজের ব্যবসা বা উদ্যগ সফল হতে পারবেন। সাফল্য নামক সোনার হরিণটি আপনার হাতের মুঠোয়!

অনলাইনে অনেক কোর্স তো করলেন! এখন একটু কষ্ট করে এই সিরিজটি পড়ে নিন। আশাকরি আপনার এই কষ্ট বিফলে যাবে না।

খুব সহজেই ফেসবুক বিজ্ঞাপন একাউন্ট সেট-আপ করে নিন

এই সিরিজের দ্বিতীয় পর্বে আপনাকে ফেসবুক বিজ্ঞাপন নামক সম্ভাবনাময় এক নতুন জগতের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়া হবে। তবে আপনি যদি একদম নোভিস অর্থাৎ এর আগে কখনো ফেসবুক বিজ্ঞাপন না দিয়ে থাকেন তাহলেও খুব একটা উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই!

আপনি যদি আমাদের এই সিরিজের একদম শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত থাকেন এবং ধীরে সুস্থে সেই অনুযায়ী প্র্যাকটিস করেন তাহলে খুব স্বাচ্ছন্দ্যের সাথেই একজন সফল ফেসবুক মার্কেটার হয়ে উঠবেন।

এই পর্বে ফেসবুক বিজনেস একাউন্ট সম্পর্কে আপনাকে মোটামুটি ধারনা দিয়ে একটি সফল ফেসবুক বিজ্ঞাপনের ক্যাম্পেইন সেটআপ করার জন্য প্রস্তুত করে দেয়া হবে। আমাদের এই সিরিজটি যদি আপনি একদম শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়েন তাহলে আপনার কাছে অনেক সহজ লাগবে।

কোন একটি পর্ব বাদ দিয়ে যদি অপর পর্ব পড়তে যান তাহলে আপনার কাছে পুরো বিষয়টি অনেক জটিল মনে হতে পারে। তাই আমাদের পরামর্শ হল এই সিরিজটি পড়ার সময় একদমই তাড়াহুড়া করবেন না, প্রয়োজন অনুযায়ী সময় নিন। ধীরে সুস্থে এই পুরো সিরিজটি শেষ করে ফেলুন।

 প্রথমবারের মত ফেসবুক বিজ্ঞাপন সেট করুন

এই পর্বে আপনার জীবনে প্রথমবারের মত একটি ফেসবুক বিজ্ঞাপন দেয়ার হাতেখড়ি হয়ে যাবে। একটি বিষয় মনে রাখুন কখনো ফেসবুক পোষ্ট ধরে শুধু বুস্ট করে দিবেন না বরং খুব যত্ন সহকারে প্রতিটি ক্যাম্পেইন ফেসবুক এড ম্যানেজার দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করুন।

খুব বেশি কষ্ট করতে হবে না আমাদের প্রতিটি পর্ব একদম সহজ করে বলা হয়েছে। এই চ্যাপ্টার শেষ করে আপনি বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি ফেসবুক এড ম্যানেজার সম্পর্কেও একটি ভালো ধারনা পেয়ে যাবেন। এছাড়াও একটি বিজ্ঞাপন তৈরির একদম প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত প্রতিটি ধাপ খুব সহজ করে এখানে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।

ফেসবুকে আপনি যে কয় ধরণের বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন 

বর্তমানে আমরা ফেসবুক বিজ্ঞাপন বলতে বুঝি যে কোন একটি পোষ্ট বুস্ট করা অথবা ফ্যান পেজে লাইক বুস্ট দেয়া। কিন্তু আদতে ফেসবুকে অনেক ধরণের বিজ্ঞাপন রয়েছে যেগুলো আপনার বিভিন্ন প্রয়োজনে কাজ করে থাকে।

আপনি এই পর্বটি পড়ার মাধ্যমে জানতে পারবেন এই সব টাইপের বিজ্ঞাপনগুলো সম্পর্কে। এগুলো জানলে আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনার ব্যবসার সাথে ঠিক কোন ধরণের বিজ্ঞাপনটি মানিয়ে যায়। এছাড়াও এইসব জানা থাকলে আপনার বাসার মার্কেটিং প্ল্যানিং করাটাও আপনার জন্য অনেক সহজ হয়ে উঠবে।

যে ধরণের ছবি ও লেখা দিলে ফেসবুক বিজ্ঞাপন বেশি কার্যকর হবে 

আদতে আপনি যেমন নিজের ব্যবসার প্রসার চাচ্ছেন এবং ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দিতে চাচ্ছেন। ঠিক তেমনই হাজারো মানুষ এই চমৎকার প্লাটফর্মে বিজ্ঞাপন দিতে ইচ্ছুক।

আর তাই আপনাকে সবসময় চেষ্টা করতে হবে নিজের দেয়া বিজ্ঞাপনটি অন্যান্যদের দেয়া বিজ্ঞাপন থেকে অনেক বেশি আকর্ষণীয় হয়ে উঠে। আর এইজন্য আপনার বিজ্ঞাপনটি আকর্ষণীয় করার জন্য প্রয়োজন সুন্দর ডিজাইন করা সব ছবি এবং আকর্ষণীয় লেখা।

আপনার ব্যবহার করা ছবি এবং লেখা যত ভালো হবে আপনার ব্যবসার প্রতি মানুষও অনেক বেশি আগ্রহ বোধ করবে। আর এই পর্বটি পড়লে আপনি জানতে পারবেন কোন ধরণের ছবি এবং লেখা আপনার বিজ্ঞাপনের ব্যবহার করতে হবে।

অডিয়েন্স বুঝে কীভাবে তাদের উদ্যেশ্যে বিজ্ঞাপন সেট করবেন

শুধুমাত্র বিজ্ঞাপন দিলেই হবে না বরং আপনার বিজ্ঞাপনটি সঠিক মানুষের কাছে পৌঁছাতে পারছে কি না সেটা জানার বিষয়। কেননা আপনি যদি মিষ্টির ব্যবসা করেন আর আপনার বিজ্ঞাপনটি ডায়াবেটিস রোগিদে কাছে পৌঁছে গেল অথবা এমন মানুষের কাছে বিজ্ঞাপন গেল যারা কি না মিষ্টি পছন্দই করে না।

আপনাকে নিজের মিষ্টির বিজ্ঞাপন এমন ভাবে সেট করতে হবে যাতে করে সেই বিজ্ঞাপন শুধুমাত্র যারা মিষ্টি পছন্দ করে তাদের কাছে পৌঁছাবে। আর আমাদের এই পর্বটি পড়লে আপনি জানতে পারবেন কীভাবে এই ধরণের অডিয়েন্স বুঝে আপনি নিজের বিজ্ঞাপন সেট করতে পারবেন।

ফেসবুক এড বিডিং এবং অপটিমাইজেশনের মাধ্যমে আরো কম খরচে বিজ্ঞাপন দিন

বাড়তি খরচ করতে কেই বা চায়? আর বিশেষ করে বিজ্ঞাপনের খরচ যদি কমিয়ে নিয়ে এসে আরো কার্যকরী উপায়ে বিজ্ঞাপন দেয়া যায় সে সুযোগ সবাই লুফে নিতে চাইবে।

আজকের পর্বটি ঠিক এই বিষয়টি নিয়েই সাজানো হয়েছে অর্থাৎ ফেসবুক বিজ্ঞাপনের বিডিং এর মাধ্যমে কীভাবে আপনি আরো কম খরচে বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। এছাড়াও এই পর্ব পড়ে আপনি আরো জানতে পারবেন কীভাবে আপনার বিজ্ঞাপন দেয়ার সঠিক উদ্যেশ্যটি পূরণ করার জন্য আপনি বিজ্ঞাপনটি অপটিমাইজ করতে পারবেন।

এছাড়াও বিজ্ঞাপন ডেলিভারি দেয়ার ক্ষেত্রে কিছু টেকনিক্যাল অপশন থাকে যেগুলো সম্পর্কে জানা থাকলে আপনার জন্য বাড়তি সুবিধা বয়ে নিয়ে আসবে।

ফেসবুক বিজ্ঞাপনের রিপোর্ট এনালাইজিং করে কীভাবে আরো কার্যকরী বিজ্ঞাপন দিবেন

ফেসবুক বিজ্ঞাপন জগতের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় নিয়েই আমরা এই ৮ম এবং শেষ পর্বে আলোচনা করেছি। বিজ্ঞাপন থেকে তথ্য এবং উপাত্ত নিয়ে সেটাকে কাজে লাগিয়ে কীভাবে আরো সুন্দর করে আপনি কার্যকর উপায়ে বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন।

যেমন ধরি, আপনি বেশ কয়েকটি বিজ্ঞাপনের রিপোর্ট এনালাইস করে দেখতে পেলেন যে আপনার পন্য শুধুমাত্র ২৫ থেকে ৩৫ বছরের মানুষেরাই বেশি কিনছে। তাহলে আপনি যদি শুধুমাত্র ২৫ থেকে ৩৫ বছর বয়সীদের মধ্যেই আপনার পরবর্তী বিজ্ঞাপনটি দেন তাহলে অবশ্যই সেটা অনেক বেশি ফলপ্রসূ হবে।

আর আমাদের সর্বশেষ পর্বটি এই রিপোর্ট এনালাইসিস নিয়েই সাজানো হয়েছে। একটি বিজ্ঞাপন থেকে আপনি অনেক ধরণের তথ্য জানতে পারেন যেমন কে বিজ্ঞাপনটি বেশি পছন্দ করেছে, কোন বয়সী কিংবা কোন এলাকার মানুষ এটা বেশি ক্রয় করেছে ইত্যাদি যাবতীয় তথ্য এই রিপোর্টিং থেকেই আপনি জানতে পারছেন।

পরিশেষে এটাই বলতেই হয় যে আপনি যদি একদম বিগিনার লেভেলের একজন হয়ে থাকেন, তাহলে এই সিরিজটি শেষ করে আপনি একজন সফল ফেসবুক মার্কেটার হয়ে উঠতে পারবেন।

তবে একটা কথা মনে রাখতে হবে সফলতা কখনো পরিশ্রম ছাড়া আসে না। তাই আপনি যত বেশি সময় দিবেন এই বিজ্ঞাপন শিখতে ততই বেশি ব্যবসায় লাভবান হবেন।